1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • রবিবার, ২১ জুলাই ২০২৪, ০১:০৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

চেক সুন্দরী ক্রিস্টিনার বিশ্ব জয়

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১২ মার্চ, ২০২৪
  • ৬৯ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট :দীর্ঘ ২৮ বছর পর ভারতের মাটিতে আয়োজন হয়েছে মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার। ফলে এবারের আয়োজনের শুরু থেকেই ভারতজুড়ে ছিল দারুণ উন্মাদনা। ১২ জন বিচারকের প্যানেল ছিল এবারের প্রতিযোগিতায়। তার মধ্যে ছিলেন কৃতী শ্যানন, পূজা হেগড়ের মতো নামী বলিউড অভিনেত্রীরা। এছাড়া ছিলেন মিস ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশনের সিইও জুলিয়া এলভিন মর্লি, অমৃতা ফড়নবীশ, সাজিদ নাদিয়াদওয়ালা, হরভজন সিং, রজন শর্মা, জামিল সইদ, বিনিত জৈন। এছাড়া ছিলেন ২০১৭ সালে মিস ওয়ার্ল্ড মানুষী চিল্লর।

মুম্বাইয়ের জিও কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ইভেন্টে সঞ্চালনার দায়িত্বে ছিলেন প্রাক্তন মিস ওয়ার্ল্ড মেগান ইয়ং ও বলিউড প্রযোজক-পরিচালক করণ জোহর। এছাড়াও এ দিনের অনুষ্ঠানে পারফরম্যান্স করেন শান, নেহা কক্কর, টনি কাক্করের মতো শিল্পীরা।

বিশ্বের অন্যতম বড় আয়োজন মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়েছেন ইউরোপের দেশ চেক প্রজাতন্ত্রের প্রতিযোগী ক্রিস্টিনা পিসকোভা। ২৪ বছর বয়সি এই তরুণী এক জমকালো অনুষ্ঠানে মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট জিতেছেন। তিনি ১১৫টি দেশের প্রতিযোগীদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। এবার প্রতিযোগিতার ৭১তম আসরটি ভারতের মুম্বাইয়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে। শনিবার আয়োজিত হয় প্রতিযোগিতার গ্র্যান্ড ইভেন্ট।

সেখানে বিজয়ী হিসেবে নাম ঘোষণার সঙ্গে ক্রিস্টিনার মাথায় মুকুট পরিয়ে দেন ২০২২ সালের বিজয়ী ক্যারোলিনা বিলস্কা। ২৪ বছর বয়সি এই তরুণী মুম্বাইয়ে এক জমকালো অনুষ্ঠানে মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট জিতেছেন। তিনি ১১৫টি দেশের প্রতিযোগীদের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। দু’বছর বিশ্ব সুন্দরীর খেতাব ছিল পোলিশ এ সুন্দরীর দখলে। কারণ, শিডিউল জটিলতায় ২০২৩ সালে আয়োজন হয়নি এ প্রতিযোগিতার। এদিনের মিস ওয়ার্ল্ড-২০২৪ প্রতিযোগিতার প্রথম রানার-আপ হয়েছেন লেবাননের ইয়াসমিনা জেইতুন।

সৌন্দর্যের মানদণ্ডে বিশ্বের ১১৯ জন প্রতিযোগীকে পেছনে ফেলে সেরার মুকুট জয় করা ক্রিস্টিনা পিসকোভা পেশায় একজন মডেল। ১৯৯৯ সালের ১৯ জানুয়ারি চেক প্রজাতন্ত্রের ট্রিনেচ শহরে জন্ম এ সুন্দরীর। আর বেড়ে ওঠা রাজধানী প্রাগে। ক্রিস্টিনা সুন্দরী প্রতিযোগিতায় পা রাখেন ২০২২ সালে। সেবার মিস চেক রিপাবলিক খেতাব জিতে নেন তিনি। এর মধ্য দিয়েই বিশ্ব সুন্দরী প্রতিযোগিতার মঞ্চে আসা তার। আর এসেই দেশের জন্য এনে দেন এক অনন্য সম্মান। ক্রিস্টিনার হাত ধরে এবার দ্বিতীয়বারের মতো মিস ওয়ার্ল্ড খেতাব জেতার সম্মান অর্জন করল চেক প্রজাতন্ত্র। এর আগে ২০০৬ সালে মিস ওয়ার্ল্ডের মুকুট পড়েছিলেন তারই স্বদেশি তাতানা কুচারোভা।

কেবল বাহ্যিক সৌন্দর্যই নয়, শিক্ষাগত যোগ্যতাও তাক লাগানোর মতো ক্রিস্টিনার। প্রাগের বিখ্যাত চার্লস ইউনিভার্সিটি থেকে আইন বিষয়ে পড়াশোনা করছেন এ সুন্দরী। সঙ্গে ম্যানেজমেন্ট স্টাডিজও চালিয়ে যাচ্ছেন ইন্সব্রুকের এমসিআই ম্যানেজমেন্ট সেন্টার থেকে। আর তার এই উচ্চশিক্ষাগত যোগ্যতার প্রতিফলনও ঘটে প্রতিযোগিতায় দেওয়া তার প্রশ্নের উত্তরের মধ্য দিয়ে। প্রতিযোগিতার নিয়ম অনুযায়ী, শেষ ধাপে ওঠে আসা আট প্রতিযোগীকেই একটি করে প্রশ্ন করা হয়। বুদ্ধিদীপ্ত উত্তর দিয়ে যারা মেধার পরিচয় দিতে পারেন, তারাই থাকেন এগিয়ে। বিশ্বজুড়ে মহিলাদের ক্ষমতা ও প্রভাব নিয়ে প্রশ্নোত্তর পর্বে আলোচনা হয়। তারপরই বিশ্ববিখ্যাত এই সুন্দরী প্রতিযোগিতার বিজয়ী বেছে নেওয়া হয়।

মঞ্চে করণ জোহর ক্রিস্টিনাকে প্রশ্ন করেন, ‘নারীদের স্বাস্থ্যসেবার একটি বিষয়ে যদি আপনাকে গ্লোরিফাই করতে বলা হয়, আপনি কোন দিকটির কথা বলবেন? এবং কেন?’

উত্তর দিতে একদমই দেরি করেননি ক্রিস্টিনা। ‘আপনার প্রশ্নের জন্য ধন্যবাদ। আমি মনে করি, নারী হিসেবে জন্ম নেওয়া একটা বড় উপহার। সারা বিশ্বের নারীদের প্রতিনিধি হিসেবে এই মঞ্চে আসতে পেরে আমি সত্যিই কৃতজ্ঞ’- এই ছিল ক্রিস্টিনার প্রকাশভঙ্গি। এরপর করণের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘নারী স্বাস্থ্যের যে বিষয়টির গুরুত্ব কখনোই ভুলা উচিত নয়, তা হলো মাসিক। কারণ, পৃথিবীর অনেক দেশেই এখনো নারীরা এ নিয়ে কথা বলতে সংকোচবোধ করেন, ভয় পান। যে মনোযোগ তাদের পাওয়া উচিত, সেটা তারা পান না।’
একই প্রশ্ন করা হয়েছিল ইংল্যান্ডের সুন্দরী জেসিকা অ্যাশলেকেও। উত্তরে তিনি বলেন, ‘নারী স্বাস্থ্যসেবার ক্ষেত্রে সহানুভূতির অভাব আর কুসংস্কার- দু’টি দিকেই আমি আলোকপাত করব। পৃথিবীর অনেক নারী দারিদ্র্যের কারণে মাসিকের সময় পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নিতে পারেন না। নারী হিসেবে তারা লজ্জিত বোধ করেন। অনেক মেয়ে স্কুল কামাই করে এই সমস্যার কারণে। স্বাধীন, শক্তিশালী নারী হিসেবে আমরা যারা আজ নিজ নিজ দেশের প্রতিনিধিত্ব করছি, আমি মনে করি, আমাদের এ ব্যাপারে কিছু করার আছে।’

প্রসঙ্গত, এবারের আসরে বাংলাদেশের হয়ে বিশ্বসুন্দরী প্রতিযোগিতায় প্রতিনিধিত্ব করেছেন ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০২৩’ শাম্মি ইসলাম নীলা। ভারতের হয়ে প্রতিনিধিত্ব করেছেন ২১ বছর বয়সি সিনি শেঠি। এতে এশিয়া থেকে বাংলাদেশ, ভারত ছাড়াও নেপাল ও জাপান এই চারটি দেশের চারজন প্রতিযোগীও অংশ নিয়েছেন।

বাংলাদেশ থেকে অংশগ্রহণকারী নীলা বলেন, ‘আমি শৈশব থেকেই মিস ওয়ার্ল্ড হওয়ার স্বপ্ন দেখতাম।’ চমৎকার হাসি ফুটিয়ে নীলা বলেন, ‘আমি যখন একেবারে ছোট্ট ছিলাম, তখন জন্মদিনে মিস ওয়ার্ল্ড প্রতিযোগিতার মুকুট কিনতাম। তারপর আয়নার সামনে দাঁড়াতাম। বলতাম, এই দেখ, আমি মিস ওয়ার্ল্ড। তারপর নিজে নিজেই সেখানে নাচতাম। সেটা বাবাকে দেখাতাম। এরপর আমার সেই জার্নি যেন বাস্তবের কাছাকাছি এসে ধরা দিল। কিন্তু আমার বাবা আর বেঁচে নেই। তবে আমি নিশ্চিত আমার ওপর বাবার আশীর্বাদ আছে। আমার স্বপ্ন নিয়ে এগিয়ে যাচ্ছি। নিজের ত্বকের যত্ন নিচ্ছি। আর ভাবছি- ওকে, বাস্তবেই ঘটছে সব। আমি শেষ পর্যন্ত এই প্রতিযোগিতায়।’

তবে শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত জানা যায়নি, ‘মিস ওয়ার্ল্ড বাংলাদেশ-২০২৩’ শাম্মি ইসলাম নীলা’ চূড়ান্ত পর্বে উন্নীত হওয়ার পথে কত নম্বরে এসে থেমেছেন।

ভারতের প্রতিনিধিত্ব করা সিনি শেঠি বলেন, প্রিয়াংকা চোপরা এবং ঐশরিয়া রাইকে দেখেছি। তাদের মতো করে নিজে নিজে বাড়িতে র‌্যাম্পে হেঁটেছি। তবে এক্ষেত্রে আমার কোনো পরিকল্পনা ছিল না। শেষ পর্যন্ত সেটা ঘটায় আমি কৃতজ্ঞ।’ করোনা মহামারির সময় নাচের শিক্ষা দিচ্ছিলেন সিনি শেঠি। ওই সময়ই মিস ইন্ডিয়া প্রতিযোগিতায় আকস্মিকভাবে প্রবেশ করে বসেন। নিজের ইচ্ছায়ই এতদূর এগিয়েছেন। তবে এবারের প্রতিযোগিতায় তার শীর্ষ দশজনের মধ্যে ঠাঁই হয়নি। এশিয়া থেকে একমাত্র নেপালের প্রিয়াংকা রানি জোশিই শীর্ষ দশে ঠাঁই পেয়েছেন।

মিস ওয়ার্ল্ড ডটকমের তথ্য অনুসারে, মিস ওয়ার্ল্ডের ৭১তম আসরে গ্র্যান্ড ফিনালে অর্থাৎ চূড়ান্ত পর্বে বিশ্বের ১০ জন প্রতিযোগী অংশগ্রহণ করেন। তারা হলেন অড্রে ভেনেসা (ইন্দোনেশিয়া), প্রিয়াংকা রানি জোশি (নেপাল), নুরসেনা সে (তুরস্ক), ক্রিস্টিনা পিসকোভা (চেক প্রজাতন্ত্র), সোফিয়া শামিয়া (ইউক্রেন), লেসেগো কম্বো (বতসোয়ানা), হালিমা কোপওয়ে (তানজানিয়া), হানাহ তুমুকোন্ডে (উগান্ডা), লেটিসিয়া ফ্রোটা (ব্রাজিল) ও আচে আব্রাহামস (ত্রিনিদাদ অ্যান্ড টোবাগো)।

উল্লেখ্য, ১৯৯৬ সালে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক এই সুন্দরী প্রতিযোগিতার আয়োজন করে ভারত। এর আগে ২০১৭ সালে শেষবার ভারত থেকে বিশ্বসুন্দরীর মুকুট ওঠে মানুষী চিল্লরের মাথায়।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..