1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • বুধবার, ০৮ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
মৌলভীবাজারের ৫টি রেলওয়ে স্টেশন বন্ধ থাকায় এখন ভুতুরে বাড়ি: যাত্রী দুর্ভোগ চরমে: চুরি ও নষ্ট হচ্ছে রেলওয়ের মুল্যবান সম্পদ,নতুন বছরে দৃঢ় হোক সম্প্রীতির বন্ধন, দূর হোক সংকট: প্রধানমন্ত্রী. আজ রোববার উদযাপন হবে বই উৎসব. দুর্গম এলাকায় বিকল্প ব্যবস্থায় নতুন বই পাঠানো হবে: শিক্ষামন্ত্রী, নতুন বছরে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী, নতুন আশা নিয়ে মধ্যরাতে বরণ করা হবে ২০২৩ সাল, সিডনিতে আতশবাজির মধ্য দিয়ে ‘নিউ ইয়ার’ বরণ, ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে পুলিশের কড়াকড়ি,আবারও প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা, সম্পাদক হলেন শ্যামল ,নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে কুয়াকাটায় পর্যটকের ঢল

মাত্র ১০ সেকেন্ডে শনাক্ত হবে করোনা ভাইরাস

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৯ জুন, ২০২১
  • ১৭৭ বার পঠিত

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মাত্র ১০ সেকেন্ডের মধ্যে করোনা শনাক্তের প্রযুক্তি উদ্ভাবন করেছেন তুরস্কের একদল বিজ্ঞানী। বিলকেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানীদের উদ্ভাবিত এ প্রযুক্তির ডিভাইসটির নাম দেওয়া হয়েছে ডায়াগনোভির।

বিজ্ঞানীরা জানিয়েছেন, ন্যানোটেকনোলজি-ভিত্তিক এই প্রযুক্তি ৯৯ শতাংশ নির্ভুল ফল প্রদানে সক্ষম। এরই মধ্যে এটি ব্যবহারের অনুমোদন দিয়েছে তুরস্কের কর্তৃপক্ষ। সরকারি অনুমোদন পাওয়ায় ডিভাইসটির ব্যাপকভিত্তিক উৎপাদন শুরু করে দিয়েছেন উদ্যোক্তারা।

ডেইলি সাবাহর প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ডায়াগনোভির নামের নতুন উদ্ভাবিত ডিভাইসটি প্রচলিত পিসিআর টেস্টের চেয়ে সম্পূর্ণ আলাদা। এটি ব্যবহার করে পরীক্ষা করলে মাত্র ১০ সেকেন্ডের মধ্যে আক্রান্ত ব্যক্তির করোনা শনাক্ত হবে। যাদের শরীরে করোনাভাইরাস নেই তাদের ক্ষেত্রে অবশ্য ফলাফল পেতে কিছুটা বাড়তি সময়ের প্রয়োজন হবে।

বিলকেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের ন্যাশনাল ন্যানোটেকনোলজি রিসার্চ সেন্টারের (ইউএনএএম) গবেষকরা অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে এ ডিভাইসটি তৈরি করেছেন। বিষয়টি নিয়ে সংবাদমাধ্যম আনাদোলু এজেন্সির সঙ্গে কথা বলেছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেক্টর অধ্যাপক আব্দুল্লাহ আতালার।

তিনি বলেন, ‘সম্পূর্ণ নিজস্ব প্রযুক্তিতে আমরা করোনা শনাক্তের নতুন এ পদ্ধতি আবিষ্কার করেছি। এ গবেষণার পেছনে দিনরাত কাজ করেছে ন্যাশনাল ন্যানোটেকনোলজি রিসার্চ সেন্টার। এখন আমরা করোনার বিরুদ্ধে কার্যকর অন্যান্য প্রযুক্তি উদ্ভাবনের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছি।’

কয়েক বছর ধরেই ন্যানোটেকনোলজির ওপর গবেষণা চালিয়ে আসছেন ন্যাশনাল ন্যানোটেকনোলজি রিসার্চ সেন্টারের গবেষকরা। তুরস্কে প্রথম করোনা শনাক্ত হওয়ার পরই এ ধরনের একটি ডিভাইস তৈরিতে মনোযোগী হন তারা।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..