1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

কোথাও পানি কমছে কোথাও বাড়ছে, সিলেটে দুর্ভোগ অব্যাহত

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২০ জুন, ২০২৪
  • ৮০ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট : বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কম হওয়ায় সিলেটের নদ-নদীর পানি উজানে কিছুটা কমেছে। তবে উজান থেকে নেমে আসা পানিতে ভাটি এলাকায় দুর্ভোগ বেড়েই চলেছে।

প্রবল বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে গত ৩০ মে প্রথম ধাপের বন্যার ধকল না কাটতেই ১৭ জুন থেকে আবারও প্রবল বন্যা দেখা দেয় সিলেট ও সুনামগঞ্জ জেলায়।

ভারতের মেঘালয় ও আসামে এবং বাংলাদেশের সিলেট বিভাগে বৃষ্টিপাত অব্যাহত থাকায় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলাতেও।

চার জেলা প্রশাসনের তথ্যমতে, বিভাগে অন্তত ১৬ লাখ মানুষ পানিবন্দি হয়েছেন। আর আশ্রয়কেন্দ্রে গতকাল বুধবার পর্যন্ত আশ্রয় নিয়েছেন অন্তত ৩০ হাজার মানুষ।

এরআগে সিলেটে বুধবার সকাল ৬টা থেকে বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা পর্যন্ত ১১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়। গত ২৪ ঘণ্টায় ভারতের চেরাপুঞ্জিতেও বৃষ্টিপাতের কোনো খবর পাওয়া যায়নি।

আজ বেলা ১১টায় এ প্রতিবেদন লেখার সময় সিলেটের আকাশে সূর্যের দেখা না মিলেলেও অনেকটা পরিষ্কার ছিল। তবে আবহাওযার পূর্বাভাসে সিলেটে বৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে।

এদিকে নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করলেও সিলেটের অধিকাংশ উপজেলার বিস্তীর্ণ এলাকা প্লাবিত রয়েছে। কোম্পানীগঞ্জ, গোয়াইনঘাট, জকিগঞ্জ, কানাইঘাট, গোলাপগঞ্জ ও সদর উপজেলার কিছু কিছু এলাকায় পানি কমার খবর পাওয়া গেছে। তবে পানিবন্দি মানুষের সংখ্যা এখনও কমেনি।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের (পাউবো) তথ্য অনুযায়ী, সিলেটে সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট উপজেলায় বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্লাবিত হচ্ছে, যা গতকাল সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১৬ সেন্টিমিটার কম।

এ নদীর পানি সিলেট নগরে আট সেন্টিমিটার কমে ২৯ সেন্টিমিটার ওপরে, সুনামগঞ্জের ছাতকে ১৪ সেন্টিমিটার কমে ১২৯ সেন্টিমিটার, সুনামগঞ্জ শহরে ১৭ সেন্টিমিটার কমে ২৬ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

তবে এই নদীর পানি ভাটিতে সুনামগঞ্জের দিরাই উপজেলায় তিন সেন্টিমিটার বেড়ে ৩২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এদিকে কুশিয়ারা নদীর পানি সিলেটের জকিগঞ্জের অমলশীদে ২৫ সেন্টিমিটার বেড়ে বিপৎসীমার ৮৭ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে, যা গত সন্ধ্যায় ছিল ৬২ সেন্টিমিটার।

কুশিয়ারা সিলেটের বিয়ানীবাজার উপজেলার শেওয়া পয়েন্টে গত সন্ধ্যায় বিপৎসীমার ৪০ সেন্টিমিটার নিচে দিয়ে প্রবাহিত হলেও আজ সকাল ৯টায় বিপৎসীমার ৪২ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।

এ নদীর পানি সিলেটের ফেঞ্চুগঞ্জে মাত্র এক সেন্টিমিটার বেড়ে ১০১ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। একই সময়ে বিপৎসীমার নিচে নেমেছে সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার সারিগোয়াইন নদী।

এদিকে বুধবার সারাদিন এবং রাতে সিলেট নগরীতে তেমন বৃষ্টিপাত না হওয়ায় নগরীর জলাবদ্ধ বিভিন্ন এলাকা থেকে নেমেছে পানি। তবে এখনো জলাবদ্ধ রয়েছে শাহজালাল উপশহর, যতরপুর, মীরাবাজার, মেন্দিবাগ, শিবগঞ্জ, তোপখানা, বেতেরবাজার, তালতলা, জামতলা, মাছুদীঘিরপাড় ও মণিপুরি রাজবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকা।

বন্যার কারণে সিলেটে এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ছাড়াও কোম্পানীগঞ্জ, ফেঞ্চুগঞ্জ ও গোয়াইনঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্যসেবা কিছুটা ব্যাহত হচ্ছে। ফলে দুর্ভোগ বাড়ছে বন্যাকবলিত মানুষের।

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় সুরমা নদীরক্ষা বাঁধের ১৮ স্থান ভেঙে গিয়ে নতুন করে প্লাবিত হয়েছে বিস্তীর্ণ অঞ্চল। এ ছাড়াও মৌলভীবাজার ধলাই নদীরক্ষা বাঁধের একটি অংশে ভাঙন দেখা দিয়েছে, প্লাবিত হয়েছে কমলগঞ্জের ৪০টি গ্রাম।

বন্যা পরিস্থিতি বিবেচনায় সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ঈদের পর ছুটি শেষে সব ক্লাস অনলাইনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। তবে ২৩ জুন থেকে ক্লাস অনলাইনে শুরু হলেও দাপ্তরিক কার্যক্রম যথারীতি চলবে বলে জনসংযোগ দপ্তর থেকে পাঠানো বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

 

উত্তরপূর্ব ভারতের আসামের অন্তত ১৫টি জেলায় বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ অবস্থা বরাক উপত্যকার বাংলাদেশ লাগোয়া জেলা করিমগঞ্জে।

লাগাতার বৃষ্টি ও বন্যার কারণে মঙ্গলবার মাঝরাতে সেখানে ভূমিধসে চাপা পড়ে একই পরিবারের পাঁচ জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানিয়েছে জেলা প্রশাসন।

আসাম বিপর্যয় ব্যবস্থাপণা কর্তৃপক্ষ এএসডিএমএ জানিয়েছে, গত ২৮শে মে থেকে এখনও পর্যন্ত মোট ৩১ জন বন্যার কবলে পড়ে মারা গেছেন।

করিমগঞ্জ জেলার কুশিয়ারা নদীর জল বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে। এ নদীর জলই বাংলাদেশে প্রবেশ করছে।

ওই জেলার ২২৫টি গ্রাম বন্যা কবলিত হয়ে পড়েছে। পুরো আসামে এরকম বন্যা কবলিত গ্রামের সংখ্যা প্রায় ৫০০।

করিমগঞ্জে ৩৫টি ত্রাণ শিবির খুলেছে স্থানীয় প্রশাসন, যেখানে পাঁচ হাজারেরও বেশি মানুষ আশ্রয় নিয়েছেন। এর বাইরে ত্রাণ সাহায্য দেওয়া হচ্ছে প্রায় ১৮ হাজার মানুষকে।

অন্যদিকে, অরুণাচল প্রদেশ, আসাম এবং মেঘালয় – এই তিনটি রাজ্যেই ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টি হবে আগামী কয়েকদিন, এরকম পূর্বাভাস জারি করেছে ভারতের আবহাওয়া বিজ্ঞান দফতর।

ইতিমধ্যেই ব্রহ্মপুত্র নদের জল বাড়ছে বলে জানা যাচ্ছে এবং তার উপনদী কোপিলি নদী বিপদসীমার ওপর দিয়ে বইছে।

 

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..