1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ২০ এপ্রিল ২০২৪, ০৪:০১ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

কর্মহীন পর্যটনসেবীরা পেলেন প্রধানমন্ত্রীর উপহার

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ৪০৩ বার পঠিত
কক্সবাজার প্রতিনিধি: উখিয়ার নয়নাভিরাম ইনানী সৈকত। কর্মহীন হয়ে মানবেতর জীবনযাপন করছেন বিচ ফটোগ্রাফার, বিচ বাইকচালক, ভাসমান ব্যবসায়ীসহ এখানকার দুই শতাধিক পর্যটনসেবী। আর প্রধানমন্ত্রীর উপহারের খাদ্যসামগ্রী নিয়ে তাঁদের পাশে দাঁড়িয়েছে উখিয়া উপজেলা প্রশাসন।
আজ শনিবার সকালে উপজেলার ইনানী এলাকার মেরিনড্রাইভ–সংলগ্ন হেলিপ্যাডে পর্যটননির্ভর এসব মানুষের মাঝে প্রধানমন্ত্রীর মানবিক সহায়তা বিতরণ করেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (উন্নয়ন ও মানবসম্পদ ব্যবস্থাপনা) মো. নাসিম আহমেদ।এ সময় অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আজকের পত্রিকাকে বলেন, জেলাব্যাপী বিধিনিষেধ বাস্তবায়নে কঠোরতার পাশাপাশি ২১ শ্রেণি-পেশার কর্মহীন মানুষদের জরুরি সহায়তা প্রদান করছে জেলা প্রশাসন, যার মধ্যে পর্যটনসেবীরাও আছেন। পর্যটন একটি সম্ভাবনাময় শিল্প, যার বিকাশে সরকারের কর্মপ্রয়াস অব্যাহত থাকবে।

উখিয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন আহমেদ বলেন, ‘মানবিক বিবেচনায় তালিকাভিত্তিক কর্মহীনদের পাশাপাশি ৩৩৩–এ কল করেও ইতিমধ্যে তিন শতাধিক মানুষ পেয়েছেন খাদ্যসহায়তা। একদিকে বিধিনিষেধ বাস্তবায়ন, অন্যদিকে কর্মহীন মানুষদের অন্নের ব্যবস্থা করতেও আমরা সব সময় প্রস্তুত।দুরবস্থায় সরকারি সহায়তা পেয়ে খুশি ইনানী সৈকতের পর্যটনসেবীরা। বিচ ফটোগ্রাফার শাহাবুদ্দিন বলেন, ‘পর্যটক না আসার কারণে দীর্ঘদিন ধরে আমাদের আয়ের পথ বন্ধ, খুব খারাপ সময় যাচ্ছে। এ অবস্থায় সহায়তার প্রয়োজন ছিল, প্রশাসন আমাদের মনে রেখেছে, তার জন্য কৃতজ্ঞতা।বিচ বাইকচালক নুরুল আমিন বলেন, ‘বিচে মানুষ এলে আমাদের পেটে খাবার জোটে, লকডাউনে খুব কষ্টে আছি। সাহায্য করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ।’

এ সময় উখিয়া উপজেলার চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ হামিদুল হক চৌধুরী, উপজেলার প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মোহাম্মদ আল মামুনসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। প্রসঙ্গত, করোনার প্রকোপ বৃদ্ধি পাওয়ায় সরকারি সিদ্ধান্তে ১ এপ্রিল থেকে তিন মাস ধরে বন্ধ রয়েছে কক্সবাজার জেলার সব পর্যটনকেন্দ্র।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..