1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ১২:২৪ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

ভারতের ত্রিপুরায় কারাভোগের পর দেশে ফিরবে ১০ বাংলাদেশী

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২১ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ১৮৯ বার পঠিত

কমলগঞ্জ প্রতিনিধি: সীমান্ত অতিক্রম করে অবৈধভাবে ভারতে অনুপ্রবেশের দায়ে ত্রিপুরার ঊনকোটি জেলার কৈলাশহর কারাগারে কারাভোগ করেন বাংলাদেশের মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জ জেলার ১০ বাংলাদেশী। বর্তমানে তাদেরকে এখন কৈলাশহর স্যাটেলার হোমে রাখা হয়েছে। ত্রিপুরার কৈলাশহরে কারাভোগের পর দেশের ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন তারা।
ভারতের দৈনিক উত্তর ত্রিপুরা পত্রিকা ও কৈলাশহর থানা সূত্রে জানা যায়, কারাভোগের পর বাংলাদেশে ফেরার অপেক্ষায় রয়েছেন হবিগঞ্জ জেলার নবীগঞ্জ উপজেলার শঙ্করপুর ইউনিয়নের নিত্যানন্দ সরকারের স্ত্রী ফুলমতি বিশ্বাস ওরফে লালমতি রানী সরকার (৬২), নিবারসা সরকারের বোন খেলা নমসুদ্র ওরফে খেলা রানী সরকার (৬০), হরেন্দ্র সরকারের বোন দীপা পুরকায়স্থ ওরফে জনতা রানী সরকার (৩০)। মৌলভীবাজার জেলার কুলাউড়া উপজেলার জয়পাশা এলাকার ইউসুফ আলীর ছেলে ইসমানন্দর আলী ওরফে মন্তাজ আলী (৩৮), মৌলভীবাজার সদর উপজেলা কাগাবলা ইউনিয়নের জমাত মিয়ার ছেলে রাজন মিয়া ও সাহান আলী. একই ইউনিয়নের আবরুস আলীর ছেলে আহমেদ আলী, আব্দুল মতলিবের ছেলে নান্টু মিয়া, কমলগঞ্জ উপজেলার ডবলছড়া চা বাগানের কালীচরণ মাদ্রাজীর ছেলে রাজু মাদ্রাজী ও একই এলাকার গোপাল সাওতালের ছেলে রানা সাওতাল।
এদের মাঝে লালমতি রানী সরকার, খেলা রানী সরকার ও দীপা পুরকায়স্থ অবৈধ অনুপ্রবেশে কৈলাশহর থানার মামলা নং ২০২০ কেএলএস মামলায় তারা কারাভোগ করেন। মন্তাজ আলী ত্রিপুরার কৈলাশহর থানার মামলা ২০২০ কেএলএস ২৮ মামলায় কারাভোগ করেন। রাজন মিয়া, আহমেদ আলী, সোহান আলী ও নান্টু মিয়া ত্রিপুরার কৈলাশহর থানার মামলা কেএলএসও মামলায় কারাভোগ করেন। বাকী দুইজন রাজু মাদ্রাজী ও রানা সাওতাল ত্রিপুরার কৈলাশহর থানার কেএলএস ৪৫ মামলায় কারাভোগ করে।
কৈলাশহর থেকে প্রকাশিত দৈনিক উত্তর ত্রিপুরা পত্রিকার সম্পাদক মোহিত পাল জানান, এই ১০ বাংলাদেশী কারাভোগের পর তাদেরকে নিরাপত্তার জন্য স্যাটেলার হোমে রাখা হয়েছে। তাদের আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশে ফেরৎ পাঠাতে আগরতলাস্থ বাংলাদেশ কনস্যুলার অফিস মাধ্যমে মৌলভীবাজার-৪ আসনের সংসদ সদস্য উপাধ্যক্ষ ড. মো. আব্দুস শহীদকে অবহিত করা হয়েছে।
শ্রীমঙ্গস্থ বিজিবি ৪৬ ব্যাটেলিয়ন কমান্ডার ল্যা. কর্ণেল মিজানুর রহমান বলেন, অফিসিয়ালী কোন চিঠি পাওয়া যায়নি। অফিসিয়ালী তথ্যে পেলে দুই দেশের আন্ত:রাষ্ট্রীয় সংশ্লিষ্ট বিভাগের আলোচনাক্রমে আনুষ্ঠানিকভাবে চাতলাপুর চেকপোষ্ট দিয়ে তাদের বাংলাদেশে ফিরিয়ে আনা হবে।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..