1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • রবিবার, ২৯ জানুয়ারী ২০২৩, ০৬:৪৩ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
মৌলভীবাজারের ৫টি রেলওয়ে স্টেশন বন্ধ থাকায় এখন ভুতুরে বাড়ি: যাত্রী দুর্ভোগ চরমে: চুরি ও নষ্ট হচ্ছে রেলওয়ের মুল্যবান সম্পদ,নতুন বছরে দৃঢ় হোক সম্প্রীতির বন্ধন, দূর হোক সংকট: প্রধানমন্ত্রী. আজ রোববার উদযাপন হবে বই উৎসব. দুর্গম এলাকায় বিকল্প ব্যবস্থায় নতুন বই পাঠানো হবে: শিক্ষামন্ত্রী, নতুন বছরে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী, নতুন আশা নিয়ে মধ্যরাতে বরণ করা হবে ২০২৩ সাল, সিডনিতে আতশবাজির মধ্য দিয়ে ‘নিউ ইয়ার’ বরণ, ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে পুলিশের কড়াকড়ি,আবারও প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা, সম্পাদক হলেন শ্যামল ,নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে কুয়াকাটায় পর্যটকের ঢল

গণমাধ্যমে নারীর উপস্থাপন আর জেন্ডার সমতা ভিন্ন বিষয়

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ৫০ বার পঠিত

অনলাইন ডেস্ক:: গণমাধ্যমসমূহ সংবাদ পরিবেশন ও নিজ প্রতিষ্ঠানে লিঙ্গভিত্তিক অবস্থানের ক্ষেত্রে অনেক সচেতন হয়েছে। তবে ভাষা প্রয়োগ, ছবি ও ভিডিও ব্যবহারের ক্ষেত্রে এখনও অনেকটা পিছিয়ে আছে। যেখান থেকে উত্তোরণের জন্য সচেতনতার পাশাপাশি,মানসিকতা পরিবর্তন জরুরী বলে মত দেন বক্তারা। আমরা সাধারণত জেন্ডার বলতে নারী-পুরুষের জৈবিক পরিচয়কে বুঝলেও আপেক্ষিকভাবে নারী ও পুরুষের সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গিকে নির্দেশ করে। মূলত জেন্ডার বলতে নারী পুরুষের কাঙ্খিত আচরন যা পরিবার, সমাজ ও সংস্কৃতি থেকে বিকশিত হয়। তেমনি জেন্ডার সংবেদনশীল বলতে নারী -পুরুষ কিংবা বিশেষ লিঙ্গের প্রতি সমাজের বিদ্যমান বৈষম্য হ্রাস পাওয়া। নারী ও পুরুষের সামাজিক সাম্য প্রতিষ্ঠিত হলেই জেন্ডার বৈষম্যের পরিসমাপ্তি অনেকটা দূর করা যাবে। এছাড়া সামজিক দায়বদ্ধতা ও গণমাধ্যম হাউজসমূহের ইতিবাচক পদক্ষেপেরই মাধ্যমে জেন্ডার বৈষম্য বিলোপ করা সম্ভব। আর জেন্ডার সংবেদনশীল হতে সরকারি ও বসেরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় সমন্বতিভাবে কাজ করা জরুরী। গণমাধ্যমে নারীকে উপস্থাপন করা আর জেন্ডার সমতা কিংবা জেন্ডার সংবেদনশীল শব্দ প্রয়োগ করা ভিন্ন বিষয়।

আজ বৃহস্পতিবার (০১ ডিসেম্বর) ‘গণমাধ্যমে জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপন পর্যবেক্ষণের ফলাফল’ বিষয়ক গোলটেবিল বৈঠকের আলোচকরা এসব কথা বলেন। SOUTH ASIA CENTER FOR MEDIA IN DEVELOPMENT(SACMID) ও প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) এর যৌথ আয়োজনে ও FREE PRESS UNLIMITED বং PROTECTING INDEPENDENT MEDIA FOR EFFECTIVE DEVELOPMENT (PRIMED) এর সহযোগীতায় এ গোলটেবিল বৈঠকের আয়োজন করে। প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) এর সেমিনার কক্ষে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। SOUTH ASIA CENTER FOR MEDIA IN DEVELOPMENT(SACMID) র উপ-পরিচালক সৈয়দ কামরুল হাসান ও প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) এর প্রশিক্ষণ বিভাগের কনিষ্ঠ প্রশিক্ষক মো. শাহ আলমের সমন্বয়ে এ গোলটেবিল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

গোলটেবিল বৈঠকের মডারেটর প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) এর মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ বলেন, নারীরা পূর্বের চেয়ে আরো বেশি সক্ষমতা অর্জন করেছে। তারা শুধু রান্না-বান্না, সন্তান প্রতিপালন করা থেকে বের হয়ে সমাজে ও দেশের জন্য কাজ করছে। নারীরা উদ্যোক্তা ও অগ্রগামী হওয়ার কারনে সমাজ থেকে অনেক বৈষম্য দূর করা সম্ভব হয়েছ। এখনও অনেক প্রতিবন্ধকতা রয়েছে সেগুলো কিভাবে উত্তোরণ করা যায় তার উপর আলোকপাত করেন।তিনি জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপন করার পাশাপাশি সামাজিক মাধ্যম নিয়ন্ত্রণের উপর গুরুত্বারোপ করেন। সম্প্রচার মাধ্যমসমূহ সংবাদ প্রচারের ক্ষেত্রে জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ গুরুত্বের সাথে প্রচার করলেও জেন্ডারভিত্তিক অসমতা অনেকাংশে বিলোপ করা সম্ভব হবে। এছাড়া সংবাদ প্রচারে পাঠক,দর্শক ও শ্রোতার বিষয়টা মাথায় রেখে সংবাদ প্রস্তুত করার কথাও বলেন তিনি। অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড.গীতি আরা নাসরিন এর প্রেস ইনস্টিটিউট বাংলাদেশ (পিআইবি) থেকে ২০০৯ সালে প্রকাশিত ‘‘জেন্ডার ও গণমাধ্যম নির্দেশক’’ বইয়ের কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় আলোকপাত করেন।

আলোচনায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের অধ্যাপক ড. গীতি আরা নাসরিন বলেন, বৈশ্বিক গণমাধ্যম পর্যবেক্ষণ বা গ্লোবাল মিডিয়া মনিটরিং ১৯৯৫ সালে শুরু হলেও বাংলাদেশে এর যাত্রা শুরু হয় ২০০৫ সালে। যদিও বাংলাদেশে গণমাধ্যম পর্যবেক্ষণ খুব একটা ফলপ্রসূ নয়,তারপরও কিছু নীতিমালার বিষয় তুলে ধরেন। তিনি বলেন,সংবাদ উপস্থাপনে পাঠক,দর্শক বা শ্রোতাকে যেমন জেন্ডার সহিংসতায় উসকে দিতে পারে, তেমনি নতুন কিছু ইতিবাচক ধারণাও সৃষ্টি করতে পারে। গীতি আরা নাসরিন বলেন, গণমাধ্যমে জেন্ডার মূলত নারীর অংশগ্রহণ ও নারীকে চিহ্নিতকরণ এই দুইটি ভাবে উপস্থাপন করা হয়। তিনি নারীর সংখ্যা বা অংশগ্রহণ দিয়ে বিচার না করে সামগ্রিকভাবে নারীর অবস্থান কেমন সেটা বিচেচনার উপর জোর দেন। এছাড়া তিনি দর্শক,শ্রোতা ও পাঠকের দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনের জন্য বস্তুনিষ্ঠ প্রতিবেদনের উপর গুরুত্বারোপ করেন। ড. গীতি আরা নাসরিন আরো বলেন, বর্তমান ক্লিক বেজ নিউজের সময় নারীপাতা বা নারীমঞ্চ নয় বরং নারীর প্রতি সমাজের ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তনে সংবাদে শব্দ চয়ন,ছবি ও ভিডিও কিভাবে উপস্থাপন করা হবে সেটা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ।

গোলটেবিল বৈঠকে জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মো. মিনহাজ উদ্দিন অংশগ্রহণ করেন। তিনি মূলত সংবাদে নারীর উপস্থাপন ও কিভাবে সামাজে সামগ্রিক কল্যাণ নিশ্চিত করা যায় তার উপর গুরুত্বারোপ করেন। জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপনের ক্ষেত্রে তিনি পাঠক ও দর্শকের বিষয়টি মাথায় রেখে সংবাদ প্রস্তুত করার কথা বলেন।

বাংলাভিশন টেলিভিশনের সিনিয়র বার্তা সম্পাদক রুহুল আমিন রুশদ কর্মক্ষেত্রে নারীর অবস্থা বলতে গিয়ে নিজ প্রতিষ্ঠানে নারীর জন্য উপযুক্ত কর্মক্ষেত্রের বিষয়টি আলোকপাত করেন। তিনি তার টেলিভিশনে জেন্ডার সংবেদনশীল শব্দ পরিহারের বিষয়ে সচেতনতার বিষয়টি বলেন। রুহুল আমিন রুশদ বলেন, জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপনের ক্ষেত্রে তিনি দর্শকের বিষয়টি মাথায় রেখে কাজ করেন বলে জানান।

গোলটেবিল বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন স্যাটেলাইট টেলিভিশন চ্যানেল আইয়ের সিনিয়র নিউজ এডিটর মীর মাশরুর জামান। তিনি বলেন,গণমাধ্যমে নারীর উন্নয়ন,উপস্থাপন এমনকি সবল -দূর্বল,কুটিল চরিত্র ইত্যাদি বিষয় প্রচার করা হয়। যা মূলত সমাজে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। মীর মাশরুর জামান গণমাধ্যমে জেন্ডারভিত্তিক উপস্থাপনের ক্ষেত্রে ভুক্তভোগী কিভাবে টিকে থাকে কর্মক্ষেত্রে তার ভূমিকা ও পদবী এমনকি সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধকতার বিষয় নিয়ে আলোচনা করেন। এছাড়া নারীর অধিকারভিত্তিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ, ক্ষমতায়ন ও জাগরনের বিষয় তুলে ধরেন।

দৈনিক প্রথম আলোর বিশেষ প্রতিনিধি মানসুরা হোসেন গণমাধ্যমে নারীর উপস্থাপনের ক্ষেত্রে ভারসাম্যতার কথা উল্লেখ করেন। তিনি লিঙ্গ বা জেন্ডার নীতিমালা নিয়ে আলোচনা করেন।

দৈনিক কালবেলার বিশেষ প্রতিনিধি আঙ্গুর নাহার মন্টি অংশগ্রহণ করেন। তিনি বলেন, জেন্ডার বিষয়টা আপেক্ষিকতা। মিডিয়া বা গণমাধ্যমসমূহে নারীদের সক্ষমতা বাড়ানোর উপর জোর দেন তিনি। আঙ্গুর নাহার মন্টি বলেন, মিডিয়া মনিটরিং বা গণমাধ্যম পর্যবেক্ষণের ক্ষেত্রে কর্মক্ষেত্রে নারীর অংশগ্রহণ ও কিভাবে প্রতিবেদনে উপস্থাপন করা হচ্ছে সেটা অন্যতম গুরুত্ব বহন করে। কারন নারীকে প্রতিবেদনে শব্দ,ছবি, ভিডিওতে কিভাবে উপস্থাপন করা হচ্ছে সেটা মূখ্য বিষয়। সেখানে নারীকে দূর্বল নাকি সবল, কুটিল, অগ্রগতি বা অবনমন কোনটি প্রাধান্য দেওয়া হচ্ছে সেটা বিবেচ্য বিষয়।

গোলটেবিল বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার সিনিয়র প্রতিবেদক ও জাতীয় প্রেসক্লাবের ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্য শাহনাজ সিদ্দিকী সোমা। তিনি নারীকে সংবাদে কিংবা প্রচ্ছদে পণ্য হিসেবে উপস্থাপনের বিষয়টি উল্লেখ করেন। তিনি সুফিয়া কামাল ও নূর জাহান বেগমের সাংবাদিকতা নিয়ে আলোচনা করেন। বেগম রোকেয়া পশ্চাৎপদ নারীগোষ্ঠীকে অগ্রসরমান করার জন্য যে আপ্রাণ চেষ্টা করেছেন তার উপর আলোকপাত করেন। দেশীয় চলচ্চিত্র নারীর অবস্থান নিয়েও কথা বলেন এই সাংবাদিক নেত্রী।

অনুষ্ঠানে PROTECTING INDEPENDENT MEDIA FOR EFFECTIVE DEVELOPMENT (PRIMED) BBC Media Action Bangladesh Gi Project Officer শিরিন আহসান মৌ অংশগ্রহণ করেন। তিনি গণমাধ্যমসমূহে ও সমাজে নারীর অবস্থান সুস্পষ্টভাবে তুলে ধরেন। শিরিন আহসান মৌ জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপনের ক্ষেত্রে সংবাদকর্মীর দায়িত্বের উপর গুরুত্বারোপ করেন।

গোলটেবিল বৈঠকে সংবাদকর্মী, বিশেষজ্ঞ, গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের শিক্ষক,গবেষকসহ মোট ২৩ জন অংশগ্রহণ করেন। অনুষ্ঠানে SOUTH ASIA CENTER FOR MEDIA IN DEVELOPMENT(SACMID) এর পক্ষে ‘গণমাধ্যমে জেন্ডারভিত্তিক সংবাদ উপস্থাপন পর্যবেক্ষণের ফলাফল’ উপস্থাপন করেন সাইদুল ইসলাম।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..