1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

কুলাউড়ার হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ৭ সদস্যের দ্বন্ধের নিষ্পত্তি

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩০ জুলাই, ২০২৩
  • ১৩৯ বার পঠিত

কুলাউড়া প্রতিনিধি: কুলাউড়ার হাজীপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ওয়াদুদ বক্স ও ইউনিয়ন পরিষদের ৭ ইউপি সদস্যেদের মধ্যে সৃষ্ট বিরোধের নিষ্পত্তি হয়েছে বলে জানা গেছে। গত ২০ জুলাই স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (উপসচিব) মল্লিকা দে স্বাক্ষরিত একটি পত্রে এমন তথ্যটি নিশ্চিত করা হয়।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গেছে, চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে আনীত বিভিন্ন অভিযোগ অধিকতর তদন্তের লক্ষ্যে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে গত ২০ জুলাই বিকেলে হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও পরিষদের সকল সদস্যদের নিয়ে এক শুনানী অনুষ্ঠিত হয়। শুনানীতে জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক (উপসচিব) মল্লিকা দে, হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াদুদ বক্স সহ পরিষদের সকল সদস্য উপস্থিত ছিলেন।
শুনানীতে চেয়ারম্যান ওয়াদুদ বক্সসহ সকল সদস্যদের বক্তব্য থেকে জেলা প্রশাসনের কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে, চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে মনোমালিন্য রয়েছে এবং উভয় পক্ষের মধ্যে সমন্বয়ের অভাব ছিল। এরফলে গত বছরের ১৬ আগস্ট চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে ৭ ইউপি সদস্য অনাস্থা প্রস্তাব করেন। চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের মধ্যে এ ধরণের দ্বন্ধের পরিবেশ সৃষ্টির ফলে সাধারণ জনগণ প্রত্যাশিত সেবা থেকে বঞ্চিত ছিলেন। এমন পরিস্থিতিতে ৬ টি বিষয় অনুসরণ করার জন্য চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের দিক নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। নির্দেশনাগুলো হলো- জন্ম নিবন্ধন ফি, উত্তরাধিকার সনদ ফি, নাগরিক সনদ ফি, ট্রেড লাইসেন্স ফিসহ সকল প্রকার সনদের ফি নির্ধারিত হারের বেশি আদায় করা যাবে না। চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের কাছে রক্ষিত কর, রেইট, টোল, ফিস এবং অন্যান্য দাবী বাবদ আদায়কৃত সকল অর্থ আগামী ৩০ দিনের মধ্যে সরকারি নির্ধারিত খাতে জমা করে জেলা প্রশাসক কার্যালকে অবহিত করতে হবে। টিআর/কাবিখা/কাবিটা প্রকল্পসহ সকল প্রকার প্রকল্প গ্রহণকালে সকল সদস্যসহ সংশ্লিষ্ট সকলের সাথে পরামর্শক্রমে প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে। প্রতিমাসে পরিষদের নির্ধারিথ সভা আহবান করতে হবে। আগামী ৩০ দিনের মধ্যে পরিষদের ভিন্ন ভিন্ন বিষয়ক স্থায়ী কমিটি গঠন করে জেলা প্রশাসক কার্যালকে অবহিত করতে হবে। চেয়ারম্যান এবং সদস্যদের মধ্যে সৌহার্দ্যপূর্ণ সম্পর্ক সৃষ্টিসহ সমন্বয়ের মাধ্যমে পরিষদের কার্যক্রম পরিচালনা করতে হবে।

এরআগে বিভিন্ন বিষয়ে অভিযোগ এনে চেয়ারম্যান ওয়াদুদ বক্সের বিরুদ্ধে অনাস্থা প্রস্তাব গ্রহণ করে গত বছরের ২৮ আগস্ট মৌলভীবাজারের সাবেক জেলা প্রশাসক মীর নাহিদ আহসানের কাছে একটি লিখিত অভিযোগ দেন ৭ ইউপি সদস্য। অভিযোগকারী সদস্যরা হলেন, হাজীপুর ইউনিয়নের প্যানেল চেয়ারম্যান (১) নূর আহমদ চৌধুরী বুলবুল, প্যানেল চেয়ারম্যান (২) আব্দুল মজিদ, প্যানেল চেয়ারম্যান (৩) সেলিনা আক্তার, সদস্য শাইস্তা মিয়া, আব্দুল মুনিম, মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান রুমেল ও সেলিনা আক্তার। অভিযোগটি তদন্ত করা হয় গত বছরের নভেম্বর মাসে। অভিযোগের ভিত্তিতে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সহকারী কমিশনার ও এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট খাদিজা তাহিরা সরেজমিন তদন্ত করে ২৮ নভেম্বর একটি প্রতিবেদন দাখিল করেন জেলা প্রশাসকের কাছে।

হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ওয়াদুদ বক্স বলেন, ৭ ইউপি সদস্য আমার বিরুদ্ধে যে অভিযোগ এনেছিলেন তা শুনানীর মাধ্যমে জেলা প্রশাসক কার্যালয়ে জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম মহোদয়ের উপস্থিতিতে নিষ্পত্তি হয়েছে। এখন থেকে সুন্দরভাবে ইউনিয়ন পরিষদ পরিচালনার জন্য জেলা প্রশাসক মহোদয় আমাদের কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছেন।

জেলা প্রশাসক ড. উর্মি বিনতে সালাম রোববার দুপুরে মুঠোফোনে বলেন, আমি এ জেলায় জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদান করার পর হাজীপুর ইউপি চেয়ারম্যান ও ৭ ইউপি সদস্যের মধ্যে দ্বন্ধের কারণে ইউনিয়নের নাগরিকরা বিভিন্ন সেবা থেকে বঞ্চিত হচ্ছিলেন এমন বিষয়টি জানতে পারি। পরবর্তীতে গত ২০ জুলাই আমার কার্যালয়ে এক শুনানী আহবান করে চেয়ারম্যান ও সকল সদস্যদের বক্তব্য শুনে বিষয়টি নিষ্পত্তি করে তাদের কিছু দিকনির্দেশনা দিয়েছি। যাতে করে তারা সমন্বয়পূর্বক সুন্দরভাবে পরিষদ পরিচালনা করতে পারে। এছাড়া ইউনিয়নে বিভিন্ন সনদ ও কর বাবদ রক্ষিত অর্থ আগামী ৩০ দিনের মধ্যে সরকারি নির্ধারিত খাতে জমা দেয়ার নির্দেশনা দিয়েছি।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..