1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ৩০ নভেম্বর ২০২৩, ০৭:৫৬ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিলেন তামিম

মৌলভীবাজার গিয়াসনগরে হাফিজিয়া মাদ্রাসার সংস্কার কাজে হামলা ও ভাংচুর: গ্রেপ্তার-২

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০২৩
  • ৭২৬ বার পঠিত

বিশেষ প্রতিনিধি: প্রবাসী পরিবারের অনুদানে নির্মিত আলহাজ্ব আব্দুল মদ্দুস রেজিয়া বেগম হাফিজিয়া মাদ্রাসায় ভাংচুর ও হামলার ঘটনায় এলাকায় আলোচনা সমালোচনা চলছে। মৌলভীবাজার সদর উপজেলার গিয়াসনগরে আলহাজ্ব আব্দুল মদ্দুস রেজিয়া বেগম হাফিজিয়া মাদ্রাসার সংস্কার কাজে বাধা প্রদান গুরুত্বর আহত হযেছে। গত বুধবার স্থানীয় প্রভাবশালীরা মাদরাসায় ফটক, নাম প্লেইটমগ আসবাপত্র ভাংচুর ও সংস্কার কাজের তদারকিতে দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিও রাজমিস্ত্রিসহ ৭/৮জন আহত হয়েছেন।


এ ঘটনায় মৌলভীবাজার মডেল থানায় একটি মামলা দায়ের হলে দুই আসামিকে ২৩ সেপ্টেম্বর গ্রেপ্তার করেছে সদর থানা পুলিশ। গ্রেপ্তারকৃতরা হলেন মৌলভীবাজার সদর উপজেলার গিয়াসনগর গ্রামের আজিজুর রহমানের ছেলে আকিকুল ইসলাম আকু (৩২) ও আশিক মিয়ার ছেলে জাহাঙ্গীর মিয়া (৪০)। এঘটনায় মৌলভীবাজার সদর থানার ওসি হারুনুর রশীদ চৌধুরী বলেন, একটি মামলা হয়েছে এবং ২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। বাকি আসামিদের গ্রেপ্তারে পুলিশ তৎপর রয়েছে। আশা করি খুব দ্রুত গ্রেফতার করে আইনের আওতায় নিয়ে আসা হবে।
সরজমিনে জানা গেছে- যুক্তরাজ্যপ্রবাসী ব্যবসায়ী ও সমাজসেবী আবুল আলা জুনেদ আহমদের পিতা মরহুম আলহাজ¦ আব্দুল মদ্দুস প্রায় ৩০ বছর আগে মৌলভীবাজার সদর উপজেলার গিয়াসনগর গ্রামে নিজস্ব অর্থায়নে ও এলাকাবাসীর সহযোগীতায় একটি হাফিজিয়া মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করেন। প্রবাসে পরিবারের কষ্টাজিত অর্থ দিয়ে নিজস্ব জমিতে পাকা ভবনে ওই মাদ্রাসায় সুনামের সঙ্গে পাঠদান চলমান রয়েছে। এতিম খানা এই মাদ্রাসায় রয়েছে ছাত্রদের থাকা-খাওয়ার ব্যবস্থাও। দিনে দিনে মাদরাসাটি ধর্মীয় শিক্ষা দানে গরীব ও অসহায় পরিবারের বাচ্চাদের দিয়ে সু শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে আসছে। শিক্ষকদের বেতনসহ যাবতীয় খরচ ওই প্রবাসী পরিবার দিয়ে যাচ্ছে। মাদ্রাসার পাশে একটি কবরস্থানও তারা নির্মাণ করে দিয়েছেন। সম্প্রতি মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতার ছেলে আবুল আলা জুনেদ আহমদ ও তার ভাইবোনসহ পরিবারের সদস্যরা মাদ্রাসা সংস্কার এবং মাদ্রাসার পাশে একটি স্কুল প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেন। এ লক্ষ্যে মাদ্রাসায় সংস্কার কাজ ও শুরু হয়। কিন্তু স্থানীয় কতেক প্রভাবশালীরা নিজেদের স্বার্থ হাসিল না হওয়ায় উঠেঠে পড়ে লাগে। প্রবাসী পরিবারের মহৎ উদ্যেশকে নিজেদের স্বার্থ হাসিলের জন্য মাদ্রাসার সংস্কার কাজে বাধা হয়ে দা ড়ায়। গত বুধবার মাদ্রাসায় সংস্কার কাজ চলাকালে স্থানীয় মেম্বার মনাই মিয়ার নেতৃত্বে একদল লোক সেখানে গিয়ে নির্মাণকাজে জড়িত লোকজনকে কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দেয়। নিয়োজিত শ্রমিকরা এসময় তাদের মালিকের নির্দেশ পেলে বন্ধ করে দিবে বললে হামলাকারীরা উত্তেজিত হয়ে দেশীয় অস্ত্রশস্ত্র নিয়ে অতর্কিত হামলা চালায়। হামলাকারীরা ওই মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতা পরিবারের পক্ষে সেখানে তদারকির দায়িত্বে নিয়োজিত সৈয়দ সিদ্দেক আলীকে বেদম মারপিট করে। তাকে রক্ষা করতে এগিয়ে যাওয়ায় নির্মাণ কাজে নিয়োজিত মিস্ত্রি জাহাঙ্গীর আলম, আবুল হোসেন, জাহিদ উদ্দিন, তাহমিদ আহমদ গংদের উপড় উপর উপর্যপুরি হামলা চালায়। এঘটনায় অরো আহত হন সিদ্দেক আলীসহ আরো কয়েকজন। হামলাকারীরা সংস্কার কাজ বন্ধ না করলে সবাইকে প্রাণে হত্যার হুমকিও দেয়। এছাড়া তারা মাদ্রাসার নবনির্মিত বিছমিল্লাহির রহমানীর রাহিম লিপিবন্ধ ফটক ও নামফলক, নির্মাণকাজে ব্যবহৃত টাইলসসহ অন্যান্য আসবাপত্র ভাংচুর করে ক্ষতিসাধন করে। এ ঘটনায় প্রবাসী আবুল আলা জুনেদ আহমদের কেয়ারটেকার মামুনুর রশীদ বাদী হয়ে মৌলভীবাজার সদর থানায় মামলা (নং-২৪, তাং-২২/০৯/২৩) দায়ের করেন। মামলার আসামিরা হলেন- গিয়াসনগর গ্রামের মনাই মিয়া মেম্বার, মশাহিদ আলী, আকিকুল ইসলাম আকু, শহিদ মিয়া, জাহাঙ্গীর মিয়া, মো. নাসিম এবং অজ্ঞাতনামা আরও ২-৩ জন।
এনিয়ে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা রতন হালদার জানান, গত শনিবার মৌলভীবাজার মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ ও উর্ধতনদের নির্দেশে ঘটনাস্থলে অভিযান চালিয়ে মামলার এজাহারভুক্ত দুই আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। তিনি আরো বলেন, ‘মাদ্রাসার সংস্কার কাজে বাধা, হামলা-ভাংচুরের ঘটনা যথাযথ তদন্ত করে আইনানুগ কঠোর পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে।
এদিকে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠাতার ছেলে যুক্তরাজ্য প্রবাসী আবুল আলা জুনেদ আহমদ জানান, ‘স্থানীয় এলাকার মানুষের জন্যই আমার বাবা আলহাজ্ব আব্দুল মদ্দুস এই মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠা করে আজীবন খাদিম হিসেবে কাজ করে গেছেন। আজ বাবা বেঁচে নেই। তার প্রতিষ্ঠিত মাদ্রাসাকে সঠিক ও সুন্দরভাবে পরিচালনায় আমার পরিবারের পক্ষ থেকে বিভিন্ন উদ্যোগ নিয়ে কিভাবে এগ্রিয়ে নেয়া যায় সেটি অব্যাহত রেখেছি। কিন্তু স্থানীয় একটি স্বার্থান্বেষী মহল নিজেদের ফায়দা হাসিলের জন্য সংস্কার কাজে বাধা ও হামলা-ভাংচুর চালিয়ে কয়েকজনকে মারাত্বকভাবে আহত করা খুবই বেদনাদায়ক ও আমরা অত্যন্ত হতাশ ও মর্মাহত। তবে পুলিশ প্রশাসন দ্রুত আইনানুগ পদক্ষেপ নেওয়ায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি ঘটনায় জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিতের জন্য আহবান জানাই।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..