1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৯:৪৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

কঠোর লকডাউনে কুকুরের খাবার বিতরন করে মানবিকতার পরিচয় দিলেন সমাজ সেবক সুয়েল আহমদ

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ১০২৫ বার পঠিত

শেখ রিয়াদ ইসলাস স্বপ্ন: সারা দেশে কঠোর লকডাউন চলছে। মৌলভীবাজার প্রশাসন করোনা মোকাবেলায় প্রতিদিন কাজ করছেন। এদিকে এবারের কঠোর লকডাউনেও অভুক্ত কুকুরের জন্য খাদ্য যোগাড়ে নেমেছেন সুয়েল আহমদ। সুয়েল আহমদ নিজ উদ্যোগে জেলা সদরসহ সবকটি উপজেলার মালিকবিহীন অভুক্ত কুকুর গুলোর সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন। গত বছর দীর্ঘসময়ের লকডাউনে যখন অভুক্ত হয়ে পড়েছিলো শহর ও গ্রামের মালিক বিহীন কুকুর গুলো,তখনও খাবার নিয়ে গিয়ে ছিলেন তিনি। সুয়েল আহমদ‘র এর প্রবাসী ও তার গ্রামের বাড়ি মৌলভীবাজার সদর উপজেলা কনকপুর এলাকায়।
গত বছর লকডাউনের প্রায় দেড় মাস প্রতিদিন তিনি মৌলভীবাজার শহর ও বিভিন্ন স্থানে প্রায় ২০০টি কুকুরকে খাবার দিতেন।
চলতি লকডাউনেও অভুক্ত কুকুরের খাদ্য যোগাড়ের দায়িত্বে নেমেছেন আবারো তিনি। কঠোর লকডাউনের প্রথম দিন থেকে ৪র্থ দিনেও মৌলভীবাজার সদরসহ বিভিন্ন স্থানে এসব কুকুরগুলোকে খাবার বিলি করছেন।

এব্যাপারে এই সুয়েল আহমদ এর সাথে আলাপকালে তিনি বলেন, মানুষ মুখে বলতে পারে কিন্তুু এই কুকুরগুলো বলতে পারছেনা কাবারের কতা বলতে পরছে ও কোনভাবে খাবার পেয়ে যাচ্ছে। লকডাউনে করোনা শুরু থেকে বাসা/বাড়িতে ঢুকলে তাড়িয়ে দিচ্ছে দেখে নিজেকে মর্মাহক করেছে। তাই এসব কুকুরের জন্য খাবারের চিন্তা মানবিকভাবে হেয় করেছে। এই প্রানীগুলো মালিক বিহীন কিন্তু বসবাস করে মানুষের পাশে। তাদের খাবারের প্রয়োজন মেটাতে আমি গত বছরের মত এই বছরও খাবার বিলি করছি।
এবারের লকডাউনের প্রথম দিন থেকে প্রতিদিন শত শত কুকুরের জন্য খাবার তৈরী করে বিলি বন্ঠন কওে আসছি। যতদিন কঠোর লকডাউন থাকবে ততদিন এভাবেই খাবার বিলি করা হবে।

মৌলভীবাজারের গত লকডাউনের পর শহর ও গ্রামে এসব অসহায় কুকুরের জন্য খাবার বিলি করবেন বলে সংবাদিক কর্মীদের জানিয়েছিলেন এই সমাজ সেবক সুহেল আহমদ। এই প্রানীগুলো আমাদের পরিবেশে থাকে। লোকজনের ফেলে দেওয়া খাবার তাদের আহারের মূল উৎস। লকডাউনের এই সময়টায় মানুষ ঘরে থাকায় বাইরে সেই ফেলে দেওয়া খাবারও নেই। এই পরিস্থিতিতে খাবারের সংকটে পড়েছে। এই কঠিন সময়ে অভুক্ত কুকুরের জন্য খাবার যোগাড়ের এমন উদ্যোগ বড় মানবিকতার পরিচয় দিলেন এই সমাজ সেবক  সুহেল আহমদ।
সচেতন মহল মনে করছেন সুহেল আহমদ কুকুরের প্রতি মানবিক সহযোগিতার হাত বাড়ানো সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..