1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ২৩ মে ২০২৪, ০৪:২০ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

বড়লেখায় সালিশে দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত ১৫, গ্রেফতার ৪ : একজন লড়ছেন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ৪ মে, ২০২৪
  • ৬২৮ বার পঠিত

বড়লেখা প্রতিনিধি:

বড়লেখায় একটি মারামারির ঘটনার আপোষ নিষ্পত্তির সালিশ বৈঠকে দুই পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে উভয় পক্ষের অন্তত ১৫জন আহত হয়েছেন বলে জানা গেছে। পরে উত্তেজিত পক্ষ অপর পক্ষের বাড়িঘর, দোকানপাট ও ৬টি মোটরসাইকেল ভাংচুর করেছে। আহতদের দুইজনকে প্রথমে স্থানীয় হাসপাতালে ও পরে তাদের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়েছে। জানা গেছে, গুরুত্বর অঅহত দুজনের একজন মৃত্যুর সাথে পাঞ্জা লড়ছেন হাসপাতালের বেডে।

ঘটনাটি গত শুক্রবার সন্ধ্যা ছয়টার দিকে উপজেলার সুজানগর ইউনিয়নের বড়থল (আদর্শগ্রাম) গ্রামের পাঞ্জেগানা মসজিদের সামনে ঘটেছে। ঘটনার পর পুলিশ একপক্ষের ৪ব্যক্তিকে গ্রেফতার করেছে। এরা হলেন- বড়থল গ্রামের মৃত ইলিয়াছ আলীর ছেলে সেলিম মিয়া, মৃত সমছির আলীর ছেলে আশুক মিয়া, মৃত সুলেমান মিয়ার ছেলে আত্তর আলী ও সহিদ মিয়ার ছেলে ইমন আহমদ। শনিবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে পুলিশ গ্রেফতার আসামিদের কারাগারে পাঠিয়েছে। প্রত্যক্ষদর্শী ও একপক্ষের থানায় দায়েরকৃত মামলা সূত্রে জানা গেছে, গত ১০ এপ্রিল ঈদের আগের রাতের একটি মারামারির ঘটনার আপোষ মীমাংসার লক্ষ্যে শুক্রবার বিকেলে বড়থল আদর্শ গ্রামের পাঞ্জেগানা মসজিদের সামনে সালিশ বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বদরুল ইসলাম, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান নছিব আলী ও এলাকার মুরব্বি আবুল আছ, সেলিম উদ্দিন, সাবেক ইউপি সদস্য আলা উদ্দিনসহ সালিশগণ একপক্ষের বক্তব্য শুনছিলেন। মুরব্বি সেলিম উদ্দিনের সাথে একপক্ষের লোকজন ঝগড়া বাধায়। এর জেরে দুইপক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। এতে উভয়পক্ষের অন্তত ১৫ব্যক্তি আহত হন। আহতরা হলেন- মাহমদ হোসেন, রুবেল আহমদ, আবুল হোসেন, খলিল আহমদ, সুমন আহমদ, ছলু মিয়া, ময়নুল ইসলাম, জাহেদ আহমদ, হাসান আহমদ প্রমুখ। পরে একপক্ষের লোকজন উত্তেজিত হয়ে দেশীয় অস্ত্র-সস্ত্র নিয়ে অপর পক্ষের ঘরবাড়িতে, মোটরসাইকেল ও দোকানপাটে ব্যাপক ভাংচুর চালিয়েছে। তাদের তান্ডবে একজন মা তার ৮ মাস বয়সের শিশু সন্তান ফেলে ঘর থেকে বেরিয়ে প্রাণ বাঁচিয়েছেন।

এব্যাপারে বড়লেখা থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সঞ্জয় চক্রবর্তী জানান, সালিশ বৈঠকে সংঘর্ষের ঘটনায় একপক্ষের সেলিম উদ্দিন প্রতিপক্ষের ১২ জনের নাম উল্লেখ ও ৭/৮ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে থানায় মামলা করেছে। পুলিশ ৪আসামিকে গ্রেফতার করে শনিবার বিকেলে আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠিয়েছে। হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় অপরপক্ষও মামলা দিলে তদন্ত সাপেক্ষে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হব।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..