1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ১০:৩৮ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

১০ মাসে বাণিজ্য ঘাটতিতে নতুন রেকর্ড

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ২ জুন, ২০২২
  • ১৭৩ বার পঠিত

ডেস্ক রিপোর্ট :: রপ্তানির তুলনায় দেশে ব্যাপক হারে বেড়েছে আমদানি। এ কারণে বহির্বিশ্বের সঙ্গে রেকর্ড পরিমাণ বাণিজ্য ঘাটতিতে পড়েছে বাংলাদেশ। চলতি অর্থবছরের প্রথম ১০ মাসে বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৭৫৬ কোটি ডলার।

আজ বৃহস্পতিবার (২ জুন) বাংলাদেশ ব্যাংক থেকে প্রকাশিত বৈদেশিক লেনদেনের চলতি হিসাবের ভারসাম্যের (ব্যালান্স অব পেমেন্ট) হালনাগাদ প্রতিবেদনে এই তথ্য পাওয়া গেছে।

একটি দেশের আমদানি ও রপ্তানির মধ্যকার সম্পর্ক হলো বাণিজ্য ঘাটতি। ইতিবাচক ভারসাম্যকে বাণিজ্য উদ্বৃত্ত বলে। তখন আমদানির থেকে রপ্তানি বেশি হয়। আর নেতিবাচক ভারসাম্যকে বলা হয় বাণিজ্য ঘাটতি, যা রপ্তানির থেকে আমদানি বেশি হলে হয়।

কেন্দ্রীয় ব্যাংকের হালনাগাদ প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, চলতি অর্থবছরের (২০২১-২০২২) ১০ মাসে (জুলাই-এপ্রিল) পণ্য বাণিজ্যে বাংলাদেশের ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে দুই হাজার ৭৫৬ কোটি ৯০ লাখ ডলার। যা তার আগের অর্থবছরের (প্রথম ১০ মাস) একই সময় ছিল এক হাজার ৮০১ কোটি ৩০ লাখ ডলার। ২০২০-২১ অর্থবছরের পুরো সময়ে (জুলাই-ডিসেম্বর) বাণিজ্য ঘাটতি ছিল দুই হাজার ৩৭৭ কোটি ডলার।

আমাদের দেশে আমদানির তুলনায় পণ্য রপ্তানি কম হওয়ায় বরাবরই বাণিজ্য ঘাটতি থাকে। তবে করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হওয়ার পর ব্যাপক হারে বেড়ে যায় আমদানি। এতে আমদানি-রপ্তানির মধ্যে বড় ব্যবধান তৈরি হয়। আর এসব কারণে রেকর্ড বাণিজ্য ঘাটতিতে পড়েছে দেশ।

চলতি অর্থবছরের আলোচিত সময়ে (জুলাই-এপ্রিল) রপ্তানি বেড়েছে ৩৪ দশমিক ৫৬ শতাংশ। এর বিপরীতে আমদানি বেড়েছে ৪১ দশমিক ৪২ শতাংশ। এ সময়ে রপ্তানি থেকে আয় হয়েছে চার হাজার ১১০ কোটি ডলার। আর পণ্য আমদানির পেছনে দেশ ব্যয় হয়েছে ছয় হাজার ৮৬৬ কোটি ডলার। আমদানি থেকে রপ্তানি বাদ দিয়ে বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে দুই হাজার ৭৫৬ কোটি ডলার।

সেবা খাতেও বেড়েছে ঘাটতি। চলতি অর্থ্ছরের ১০ মাসে সেবা খাতে আয় হয়েছে ৭৯৫ কোটি ডলার। এর বিপরীতে ব্যয় হয়েছে এক হাজার ১১৪ কোটি ডলার। সে হিসাবে এ খাতে বাণিজ্য ঘাটতি দাঁড়িয়েছে ৩১৯ কোটি ডলার। আগের অর্থবছরের একই সময়ে ঘাটতির পরিমাণ ছিল ২১৫ কোটি ডলার।

চলতি হিসাবের ভারসাম্যেও (কারেন্ট অ্যাকাউন্ট ব্যালেন্স) বড় ঘাটতি দেখা দিয়েছে। আলোচিত সময়ে ঘাটতির (ঋণাত্মক) পরিমাণ দাঁড়িয়েছে এক হাজার ৫৩২ কোটি ডলার। যা তার আগের অর্থবছরে একই সময়ে ঘাটতি ছিল ১৬৫ কোটি ডলার। আর সামগ্রিক লেনেদেনে (ওভারঅল ব্যালান্স) ঘাটতির পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৩৭১ কোটি ডলার, যা গত অর্থবছরের (২০২০-২০২১) একই সময়ে এ সূচকে ৭৪৯ কোটি ডলার উদ্বৃত্ত ছিল।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..