1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৩, ০৭:০৫ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
মৌলভীবাজারের ৫টি রেলওয়ে স্টেশন বন্ধ থাকায় এখন ভুতুরে বাড়ি: যাত্রী দুর্ভোগ চরমে: চুরি ও নষ্ট হচ্ছে রেলওয়ের মুল্যবান সম্পদ,নতুন বছরে দৃঢ় হোক সম্প্রীতির বন্ধন, দূর হোক সংকট: প্রধানমন্ত্রী. আজ রোববার উদযাপন হবে বই উৎসব. দুর্গম এলাকায় বিকল্প ব্যবস্থায় নতুন বই পাঠানো হবে: শিক্ষামন্ত্রী, নতুন বছরে নতুন শিক্ষাক্রম চালু হচ্ছে : শিক্ষামন্ত্রী, নতুন আশা নিয়ে মধ্যরাতে বরণ করা হবে ২০২৩ সাল, সিডনিতে আতশবাজির মধ্য দিয়ে ‘নিউ ইয়ার’ বরণ, ইংরেজি নববর্ষ উদযাপনে পুলিশের কড়াকড়ি,আবারও প্রেস ক্লাবের সভাপতি ফরিদা, সম্পাদক হলেন শ্যামল ,নতুন বছরকে স্বাগত জানাতে কুয়াকাটায় পর্যটকের ঢল

‘অভিনেতা হিসেবেই পরিচয় দিতে ভালোবাসি আমি’

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৩ আগস্ট, ২০২২
  • ৫৬ বার পঠিত

বিনোদন ডেস্ক : ছোট ও বড় পর্দার জনপ্রিয় অভিনেতা ফজলুর রহমান বাবু। মঞ্চ, থিয়েটার, টেলিভিশন নাটক এবং সিনেমা ও ওয়েব সিরিজে সাবলীল অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকহৃদয়ে জায়গা করে নিয়েছেন তিনি। অভিনয়ের বাইরে সংগীতও করেন। এছাড়া ব্যাংকেও কর্মরত ছিলেন এই অভিনেতা। তবে এই সবকিছু ছাপিয়ে নিজেকে একজন অভিনেতা হিসেবেই পরিচয় দিতে ভালোবাসেন বলে জানালেন বাবু।

১৯৬০ সালের ২২ আগস্ট ফরিদপুরে জন্মগ্রহণ করা ফজলুর রহমান বাবু অভিনয় জীবন শুরু করেন ১৯৭৮ সালে ফরিদপুরে ‘বৈশাখী নাট্য গোষ্ঠীতে’ যোগদানের মাধ্যমে। ওই বছরই প্রথমবারের মতো জাতীয় নাট্যোৎসবে অভিনয় পরিবেশন করেন তিনি। এভাবে অভিনয় চালিয়ে যাওয়ার মাঝেই ১৯৮৩ সালে যোগ দেন অগ্রণী ব্যাংকে। ব্যাংকে যোগ দিলেও বন্ধ রাখেননি অভিনয়।

ফজলুর রহমান বাবু বলেন, “চাকরিতে যোগ দেয়ার আগে থেকে থিয়েটারে কাজ করি আমি। তখন থেকেই নিজেকে একজন নাট্যকর্মী ভাবতাম। চাকরি করাকালীন আমি ঢাকায় ‘আরণ্যক নাট্যদল’-এ যোগ দেই। চাকরি করলেও অতিরিক্ত সময়ে নাট্যচর্চা চালিয়ে যেতাম। কখনো অভিনয় থেমে থাকেনি, সরে দাঁড়াইনি। এটা নিয়মিতই করতাম।”

এই অভিনেতা বলেন, “ব্যাংকে চাকরি করলেও কখনো ব্যাংকার হিসেবে পরিচয় দিতাম না আমি। নিজেকে সবসময় একজন নাট্যকর্মী কিংবা অভিনেতা বলেই পরিচয় দিয়েছি। এখনো নিজেকে এই পরিচয়েই পরিচিতি দেই।”

“শুরুটা থিয়েটারে দিয়ে হলেও এভাবে ধীরে ধীরে এক সময় টেলিভিশন নাটক, সিনেমা ও ওয়েব সিরিজে অভিষেক করা আমার।”

পর্দায় সাবলীলভাবে দেখে দর্শকরাও বেশ মুগ্ধ। প্রতিষ্ঠিত ও সফল অভিনেতাদের মধ্যে একজন তিনি। অনেক আগেই ইন্ডাস্ট্রিতে প্রতিষ্ঠিত ও শক্ত অবস্থানে জায়গা করে নিয়েছেন। তবে অনেকের ক্ষেত্রেই সংগ্রাম করতে হয়। তারও সংগ্রাম করতে হয়েছে। তিনি বলেন, “আমিও সংগ্রাম করেছি। সেটা নিজেকে প্রস্তুত করার সংগ্রাম করেছি। পরিচালক চিনছে না, প্রযোজক ডাকছে না, কাজ পাচ্ছি না, কাজের জন্য দ্বারে দ্বারে ঘুরছি—এমন সংগ্রাম নয়। সব সময় নিজেকে প্রস্তুত করার সংগ্রাম করেছি আমি। সেই সংগ্রাম এখনো করছি।”

প্রায় চার দশকেরও বেশি সময় ধরে অভিনয়ের সঙ্গে জড়িত ফজলুর রহমান বাবু। দীর্ঘ দিনের ক্যারিয়ারের বিষয়ে তিনি বলেন, “আমি নিজেকে আপডেট রাখার চেষ্টা করেছি। নাটক-সিনেমা ও ওয়েব সিরিজেও কাজ করেছি। কাজের জায়গায় ঠিক থাকার চেষ্টা করেছি। কাজের ক্ষেত্রে কখনো কোনো ছাড় দেইনি। নিজের সর্বোচ্চটা দেয়ার চেষ্টা করেছি। পাশাপাশি থিয়েটারেও কাজ করেছি।”

২০০০ সালের পরবর্তী সময়ে মাসে অন্তত ২৫ দিন শুটিংয়ে ব্যস্ত থেকেছেন অভিনেতা বাবু। এখনো ব্যস্ত থাকেন। তবে এখন আর আগের মতো কাজ করেন না। কাজের ক্ষেত্রে অনেক ভেবে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকেন। আর কাজের ব্যস্ততার প্রসঙ্গ উঠতেই তিনি বলেন, “মাসে যে কয়দিনই কাজ করেছি বা করি না কেন, কখনো ব্যস্ততা অনুভব করি না। কাজকে উপভোগ করি। আর কমিটমেন্ট থাকলে তো সেই অনুযায়ী আমাকে কাজ করতেই হবে। আমিও তাই করেছি। তবে এখন আর এতবেশি শুটিং করি না।”

বর্তমানে শুটিংয়ের ব্যাপারে এই অভিনেতা বলেন, “এখন শরীরের ব্যাপার-সেপার রয়েছে। তার থেকেও গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে, ভালো কাজ ছাড়া শুধু অর্থের কারণে কাজ করা আমার পছন্দ না। বেশি বেশি কাজ করলে আমাকে টেলিভিশনে দেখা যাবে, টাকা পাওয়া যাবে—এমন চিন্তা কখনোই করি না। যতটা সম্ভব ভালো কাজ পাই তা করার চেষ্টা করি। এর মধ্যে সবই যে ভালো হবে বা সব দর্শকের কাছে ভালো লাগবে বিষয়টি এমনও না। দর্শকের সবার রুচি তো একরকম নয়। তবে ভালো কাজ করারই চেষ্টা করি বেশি।”

অভিনয় করলেও পাশাপাশি গানও করেন এই গুণী অভিনেতা। অ্যালবাম ও প্লেব্যাকেও কণ্ঠ দিয়েছেন তিনি। ২০০৮ সালে মিশ্র সংগীত অ্যালবাম ‘মনচোর’-এ চারটি গান করেছেন। পরের বছরই ২০০৯ সালে প্রকাশ পায় একক অ্যালবাম ‘ইন্দুবালা’। এছাড়া ‘মনপুরা’ সিনেমার দুটি গানে কণ্ঠ দেন তিনি। সিনেমাটি ২০০৯ সালে মুক্তির পর গান দুটি হিট হওয়ার পাশাপাশি প্রশংসিত হন বাবু।

জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার বিজয়ী এই অভিনেতা বলেন, “গান আমি ভালোবাসি। একটা পছন্দের জায়গা। মাঝে মাঝে যে কয়টা গান করি বা করেছি তা দর্শক-শ্রোতা তা সানন্দে গ্রহণ করেছে। তাদের ভালোবাসা পেয়েছি। তবে গানকে কখনো পেশা হিসেবে নিতে চাইনি। এ কারণে গানের কোনো প্রোগ্রামও করি না। মূলত নিজেকে অভিনেতা হিসেবেই দেখতে চেয়েছি, এখনো সেই চেষ্টাই করি। আর আমি একটা পরিচয়ে পরিচিত হতে চাই, অনেকগুলো পরিচয়ে নয়। অভিনয় আমার প্যাশন।”

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..