1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • শনিবার, ১৩ জুলাই ২০২৪, ০৫:২৩ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

ভারি বৃষ্টিতে ধলাই নদীর পানি বৃদ্ধির আশঙ্কা, নিম্নাঞ্চল প্লাবিত

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৮ জুন, ২০২২
  • ১৬৪ বার পঠিত

স্টাফ রির্পোটার :: মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জ উপজেলায় বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে ভারি বর্ষণ অব্যাহত রযেছে। ভারি বর্ষণ ও উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলের পানিতে ধলাই নদীসহ উপজেলার বিভিন্ন পাহাড়ি ছড়া সমূহে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে। সেই সাথে উপজেলার নিম্নাঞ্চল ও প্লাবিত হয়েছে। বৃষ্টির পানি ও উজানের পাহাড়ি ঢল নামা অব্যাহত থাকলে যে কোন সময় ধলাই নদীর পানি বৃদ্ধি পেয়ে বন্যা দেখা দিতে পারে। বন্যার আশঙ্কায় মানুষজন আতঙ্কে রয়েছে।

শ্রীমঙ্গল আবহাওয়া অফিসের সিনিয়র অবজারভেশন অফিসার আনিসুর রহমান জানান,বৃহস্পতিবার রাত ১২টা থেকে শুক্রবার দুপুর ১২টা পর্যন্ত ৯.৮ মিলি মিটার এবং শুক্রবার দুপুর ১২টা থেকে বিকাল ৩টা পর্যন্ত ৩৯ মিলি মিটার বৃষ্টি রেকর্ড করা হয়েছে।

তিনি আরো জানান, এই আবহাওয়া আরো কয়েক দিন অব্যাহত থাকবে। এদিকে ,বৃহস্পতিবার রাত থেকে অব্যাহত মুষল ধারে বৃষ্টির কারনে
প্রয়োজন ছাড়া কেউই ঘরে বাইরে বের হতে পারেনি। বৃষ্টির কারণে নিম্ন আয়ের মানুষরা কাজ করতে না পারায় দুর্ভোগে পড়তে হয়েছে।

এছাড়া মৌলভীবাজার পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্রে জানা যায়, বৃষ্টি ও পাহাড়ি ঢলে পানি বাড়লে ও বিকাল সাড়ে ৩টা পর্যন্ত ধলাই নদীর পানি এখন ও বিপদসীমার ১৩ মিটার নিচ দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। তবে উজান থেকে পাহাড়ি ঢলের পানি নামতে থাকলে ধলাই নদীতে পানি আরো বৃদ্ধি পেতে পারে। তবে আমরা সর্তক অবস্থায় আছি।

ধলাই নদীর পানি এখনো বিপদসীমা অতিক্রম না করলে বৃষ্টির পানি বৃদ্ধি পেয়ে উপজেলার কেওলার হাওড়, লাউয়াছড়া, ক্ষিনী ছড়া, ডালুয়াছড়া, লাঘাটা ছড়া পানি বৃদ্ধি পেয়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এসব এলাকার নিচু জমিতে আবাদী আউশের জমি পানিতে তলিয়ে গেছে। পানি বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে ফসল হানীর আশংকা করছেন কৃষকরা।

কমলগঞ্জ উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. জনি খান বলেন, বৃষ্টি ও ঢলের পানিতে নিম্নাঞ্চলের ফসলী জমিতে পানি প্রবেশ করেছে। তবে কতটুকু ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে তা এখনো নির্ধারণ করা হয়নি।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..