1. newsmkp@gmail.com : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. info@fxdailyinfo.com : admi2017 :
  3. admin@mkantho.com : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১০:১৬ পূর্বাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
* বন্যাকবলিত এলাকা পরিদর্শনে সিলেটে প্রধানমন্ত্রী   *  বন্যা নিয়ে দুশ্চিন্তার কিছু নেই, সরকার সব ব্যবস্থা নিয়েছে : প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৪ আগস্ট, ২০২২
  • ১৫৮ বার পঠিত

কুলাউড়া উপজেলার ব্রাহ্মণবাজার ইউনিয়নে শীতলী পূজাকে কেন্দ্র করে গত ৭ জুন সনাতন ধর্মালম্বীদের দু’পক্ষের মারামারিতে সুরঞ্জিত বিশ্বাস (১৯) নামে এক তরুণের মৃত্যু হয়। পরবর্তীতে এই ঘটনায় থানায় হত্যা মামলা হলে পুলিশ মামলার এজাহারভূক্ত প্রধান আসামীকে গ্রেফতার করে।পুত্র হত্যার বিচার ও বাকী আসামীদের গ্রেফতার না করার কারণে নিহত সুরঞ্জিত বিশ্বাস এর বাবা-মা গত ২০ জুলাই কুলাউড়া এক সংবাদ সম্মেলন করে। পরবর্তীতে বিভিন্ন গণমাধ্যমে উক্ত সংবাদের সাথে হুমকি-ধামকির অভিযোগ এনে স্থানীয় ইউপি সদস্য ছয়ফুল ইসলাম, আওয়ামীলীগ নেতা বিমলেন্দু সেন কৃষ্ণ, ব্যবসায়ী আব্দুল লতিফকে জড়িয়ে সংবাদ প্রকাশ করায় তারা তিন জন প্রকাশিত সংবাদের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। এক লিখিত বক্তব্যে তারা জানান,
স্থানীয় ইউপি সদস্য ছয়ফুল ইসলাম বলেন, জনপ্রতিনিধি হিসেবে এলাকায় কোন ঘটনা ঘটলে সেটি সমাধানের জন্য দু’পক্ষকে নিয়ে আমাদের আলোচনা করতে হয়।আমার এলাকায় কালিমন্দিরে শীতলী পূজা নিয়ে স্থানীয় হিন্দু ধর্মালম্বীদের দু’পক্ষের মধ্যে বিরোধ দেখা দিলে ইউপি চেয়ারম্যান ও পূজা উদ্যাপন কমিটির নির্দেশে বিরোধ নিস্পত্তির চেষ্টা করি। কিন্তু দুভার্গ্যজনক হলেও সত্য যে, আমার কথা অমান্য করে দু’পক্ষ শীতলী পূজা নিয়ে মারামারিতে লিপ্ত হয়।এতে দু’পক্ষের লোকজন আহত হয়। খবর পেয়ে আমি ইউনিয়ন পরিষদ থেকে ঘটনাস্থলে ছুঁটে যাই। তখন বিষয়টি কুলাউড়া থানা পুলিশকে অবহিত করি এবং আহতদের হাসপাতালে পাঠানোর জন্য ব্যবস্থা করি। ঘটনা যেদিন ঘটে সেদিন থানায় বসে বর্তমান ও সাবেক ইউপি চেয়ারম্যানের উপস্থিতিতে বিষয়টি আপোষ নিষ্পত্তির উদ্যোগ নেয়া হয়। কিন্তু পরদিন ছেলেটি মারা গেলে থানায় মামলা হয়। পরবর্তীতে এই ঘটনার সাথে আমাদের আর কোন সম্পৃক্ততা ছিলনা। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়, একটি বিশেষ পক্ষের ইন্ধনে আমাকে হুয়রানি করার জন্য নিহত সুরঞ্জিতের পিতা সুধাংশু বিশ্বাস আদালতে ১০৭ ধারায় একটি মামলা (নং- ১৫৮)দায়ের করেন ।পরবর্তীতে এ নিয়ে বিভিন্ন যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছে একটি পক্ষ।এতে একজন জনপ্রতিনিধি হিসেবে সামাজিকভাবে আমার সম্মানহানি হয়েছে। আমি এই বিষয়ের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।
আওয়ামীলীগ নেতা বিমলেন্দু সেন কৃষ্ণ বলেন, ব্রাহ্মনবাজার ইউনিয়নের শ্রীপুর গ্রামের কালী মন্দিরে শীতলী পূজা নিয়ে দীর্ঘদিন থেকে যে বিরোধ চলে আসছিলো সেটা সম্পর্কে আমি কোনভাবেই অবগত নই। কিন্তু ঘটনা সংগঠিত হওয়ার পর বিভিন্ন মাধ্যমে বিষয়টি সম্পর্কে জানতে পারি। ঘটনাস্থলে থেকে আমার বাড়ি প্রায় তিন কিলোমিটার দূরত্বে। স্থানীয় ও উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদ তখন বিষয়টি নিয়ে আমার সাথে আলোচনা করলে বিষয়টি সম্পর্কে আমি অবগত হই। আমার ৫১ বছরের জীবনে আমি ওই মন্দিরে কখনো যাওয়ার সুযোগ হয়নি। আমি মনে করি, রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে আমাকে এই বিষয়ে জড়ানো হয়। হুয়রানি করতে আদালতে ১০৭ ধারায় (নং-১৫৮) মামলায় জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এতে সামাজিক ও রাজনৈতিকভাবে আমার মান-মর্যাদা ক্ষুণ হয়েছে। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।
ব্যবসায়ী আব্দুল লতিফ বলেন, পূজাকে কেন্দ্র করে হিন্দু ধর্মালম্বীদের দু’পক্ষের মধ্যে যে মারামারি হয় সেদিন আমি এলাকায় কিংবা কুলাউড়া উপজেলায় ছিলাম না। তারপরও রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে স্থানীয় একটি বিশেষ মহলের ইন্ধনে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে হুমকি-ধামকির অভিযোগ এনে আদালতে ১০৭ ধারায় আমার বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করা হয়। যার (মামলা নং-১৫৮) এছাড়া এই বিষয়ে বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে আমার নাম জড়িয়ে বিভিন্ন অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। এতে সামাজিকভাবে আমার মর্যাদা ক্ষুন্ন হচ্ছে। আমি এই ঘটনার তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

 

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..