1. [email protected] : Admin : sk Sirajul Islam siraj siraj
  2. [email protected] : admi2017 :
  3. [email protected] : Sk Sirajul Islam Siraj : Sk Sirajul Islam Siraj
  • E-paper
  • English Version
  • সোমবার, ১৫ এপ্রিল ২০২৪, ০৮:৪৭ অপরাহ্ন

ব্রেকিং নিউজ :
বিনোদন :: গান গাইতে গাইতে মঞ্চেই গায়কের মর্মান্তিক মৃত্যু!,  খেলার খবর : অনূর্ধ্ব-১৯ এশিয়া কাপ চ্যাম্পিয়ন বাংলাদেশ, বিমানবন্দরে যুবাদের জানানো হবে উষ্ণ অভ্যর্থনা,

ভূমিকম্প সহনীয় মাত্রায় তৈরি হয়নি রাজা জিসি স্কুলের সেই ভবনটি

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ৮ জুন, ২০২১
  • ১৭২ বার পঠিত

সিলেট প্রতিনিধি :: ভূমিকম্পে ফাটল ধরা সিলেট নগরের বন্দরবাজার এলাকার ঐতিহ্যবাহী রাজা জিসি স্কুলের ভবনটি ভূমিকম্প সহনীয় মাত্রায় তৈরি করা হয়নি বলে জানিয়েছেন জেলা শিক্ষা ভবনের নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল হাকিম।

গতকাল সোমবার সন্ধ্যায় সিলেট নগরীতে ৩ দশমিক ৮ মাত্রার দুই দফায় ভূমিকম্পে ফাটল দেখা দেয় রাজা জিসি স্কুলের ‘কামরান ভবনে’। এই ভবনটি সাবেক সিটি মেয়র বদরউদ্দিন কামরানের নামে নামকরণ করা হয়েছিলো।

ফাটলের খবর পেয়ে মঙ্গলবার (৮ জুন) দুপুরে জেলা শিক্ষা ভবনের নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল হাকিমের নেতৃত্বে একটি দল ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে সাংবাদিকদের এমন কথা জানান।

পরিদর্শন শেষে নির্বাহী প্রকৌশলী নজরুল হাকিম বলেন, ভবনটি প্রায় ২৮ বছর আগে তৈরি করা হয়েছিলো। ভবনটি ওই সময়ে ভূমিকম্প সহনীয় মাত্রায় তৈরি করা হয়নি। ভূমিকম্পে ফাটল হওয়া কামরান ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। প্রয়োজনে ভূমিকম্প প্রতিরোধক আরেকটি ভবন তৈরি করা হবে। সেই সাথে সিলেটে গত দুবছর থেকে যতটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ভবন তৈরি করা হয়েছে সেগুলো ভূমিকম্প সহনশীল মাত্রায় তৈরি করা হচ্ছে। ভূমিকম্প প্রাকৃতিক দুর্যোগ কি ভাবে ক্ষতি হয় তা বলা যায় না। পরিত্যক্ত ভবনের কারণে স্কুলে ক্লাস রুমের সমস্যা থাকলে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সাথে আলাপ করে নতুন করে প্রয়োজনে ক্লাস রুম করে দেয়া হবে।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় ভূমিকম্পের পর বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আব্দুল মুমিন জানান, ১৮৮৬ সালে রাজা জিসি হাই স্কুল স্থাপিত হয়। এ বিদ্যালয়ে ২০০৬ সালে একটি ভবন নির্মিত হয়। এসময় ওই ভবনের নিচ তলা পাকাকরণ হয়। আর ২০১৭ সালের দিকে দ্বিতীয় তলার কাজ সম্পন্ন হয়। আজকের ভূমিকম্পে ওই ভবনের প্রত্যেকটা রুমে ফাটল দেখা দিয়েছে। এছাড়া বিজ্ঞানাগারসহ ঐ ভবনটিতে ১০টি শ্রেণীকক্ষ রয়েছে। এই ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হলে স্কুল খুললে শিক্ষার্থীদের মাঠে বসিয়ে ক্লাস করাতে হবে। তিনি সরকারের কাছে বিকল্প ব্যবস্থা করার জন্যও আবেদন জানান।

এদিকে গতকাল সন্ধ্যায় ভূকম্পনে ভবন ফাটলের খবর পেয়ে রাজা জিসি স্কুল পরিদর্শনে যান সিলেট সিটি করপোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী।

এ সময় মেয়র আরিফ বলেন, ভূমিকম্পে স্কুল ভবনের অনেক জায়গায় ফাটল দেখা দিয়েছে। এই ভবনটি ভেঙে ফেলতে হবে। এর কোনো বিকল্প নেই।

এই ভবনের পেছনে বড় পুকুর ছিলো উল্লেখ করে মেয়র আরিফ বলেন, এই স্কুলসহ নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ সকল ভবন ও মার্কেট পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার জন্য বুধবার বিকেলে আমরা শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি জরুরি বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। সে বৈঠকে নগরীর ঝুঁকিপূর্ণ সকল ভবন ও মার্কেটগুলো দ্রুত পরীক্ষা করার বিষয়ে আলোচনা করা হবে।

প্রসঙ্গত, সিলেটের ঐতিহ্যবাহী বিদ্যাপীঠ রাজা জিসি উচ্চ বিদ্যালয়। শতবর্ষি এই বিদ্যালয়ে ১৮৮৬ সালে নির্মাণ করেন প্রখ্যাত দানশীল ও শিক্ষানুরাগী রাজা গিরিশ চন্দ্র। এই ভবনটি সিলেট সিটি করপোরেশনের সাবেক মেয়র প্রয়াত বদরউদ্দিন আহমদ কামরানের নামে নির্মিত। ২০০৬ সালে এই ভবন নির্মিত হয়। ২০১৭ সালের দিকে ভবনের দ্বিতীয় তলার কাজ সম্পন্ন হয়।

প্লিজ আপনি ও অপরকে নিউজটি শেয়ার করার জন্য অনুরোধ করছি

এ জাতীয় আরো খবর..